চা বিক্রিতে আপত্তি করায় দোকান পুড়িয়ে দিলো সুনিল বিশ্বাসকে

করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে যেখানে সারাদেশে সতর্কতা জারি করা হয়েছে, সেখানে প্রশাসনের আইনের প্রতি কোন রকম তোয়াক্কা না করেই হাট বাজারে অবাধে ঘুরে বেড়াচ্ছে সাধারণ মানুষ। এ পরিস্থিতিতে গতকাল রাত ১১.৩০ টার দিকে বাঘারপাড়ার ধলগ্রাম ইউনিয়নের শ্রীপুর গ্রামের চা বিক্রেতা সুনিল বিশ্বাস(৬৫) নিজ বাড়ির সাথে অবস্থিত চায়ের দোকানটি বর্তমান মহামারি করোনা পরিস্থিতিতে বন্ধ করতে গেলে স্থানীয় চারজন যুবক এসে চা খাওয়ার জন্য আপত্তি করে। এ সময় দোকানদার চা না দেবার আপত্তি জানালে তাকে অকত্ত ভাষায় গালিগালাজ করে তারা দোকান থেকে বেরিয়ে যাই । পরবর্তিতে দোকান গুছিয়ে যখন সুনিল বিশ্বাস দোকানের মধ্যে ঘুমিয়ে পড়ে তখন আনুমানিক রাত ১১ টার পর স্থানীয় সেই বখাটে ছেলেগুলো এসে দোকানে ঘুমিয়ে থাকা চা ওয়ালা সুনিল বিশ্বাস সহ আগুনে পুড়িয়ে দেয়। প্রতিবেশীরা বিষয়টা টের পেয়ে চিৎকার করলে দূর্বিত্তরা পালিয়ে যাই,এবং দোকানির ঝলসে য্ওায়া শরীর তাৎক্ষণিক স্থানীয়রা উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। এতে তার শরীরের অর্ধেক অংশ পুড়ে যায়। তার দোকানে থাকা নগত ২৫ হাজার টাকাসহ প্রায় ৮০ হাজার টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে জানায় তার পরিবার। এ বিষয়ে ভিকটিমের পরিবার বাঘারপাড়া থানায় মামলা দায়ের করে এবং প্রশাসনের কাছে অপরাধীর সর্বচ্চো শাস্তি দাবি করেন।

Leave A Reply

Your email address will not be published.